ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী কমলনগরে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, এক বাড়ি লকডাউন ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি ভবানীগঞ্জে কর্মহীন পরিবহণ শ্রমিকদের মাঝে সদর এমপি’র ত্রাণ বিতরণ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো লক্ষ্মীপুরে লকডাউন অবস্থায় অসুস্থ যুবকের মৃত্যু : নমুনা সংগ্রহ
  • রোববার   ১৬ আগস্ট ২০২০ ||

  • ভাদ্র ১ ১৪২৭

  • || ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

৪১৪

"আমাদের নববর্ষ "

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১ জানুয়ারি ২০২০  

শহরের নামীদামী রেস্তোরা আর শপিং মল গুলো যখন নতুন বছরকে বরণ করতে রঙিন নিয়নবাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে তখন সুদূরবর্তী গ্রামের ঐ চিলেকোঠা ঘরে সন্ধ্যাপ্রদীপ প্রোজ্জ্বল হলো নিত্যদিনের মতোই। কিংবা শহরের ঐ বস্তির মানুষ গুলো ল্যাম্পপোস্টের আলোই রাত পার করে দিচ্ছে।
এই শহরে প্রাচুর্য ভরা পরিবার গুলো যখন বর্ষ বরণে দামী সাউন্ডস সিস্টেম দিয়ে নাচগানের অনুষ্ঠানে ব্যস্ত তখন ঐ বস্তির কোন এক বৃদ্ধ প্রকাণ্ড শীতের তীব্রতা সহ্য করতে না পেরে মৃত্যু বরণ করে আর সেখানে বইছে শোকের হাওয়া।
তোমরা যখন নতুন বছর উপলক্ষ্যে বিরিয়ানির সাথে বিদেশী বোতল গিলছো তখন বস্তির ঐ ঘরে প্রতিদনকার মতোই কোন রকম মসুর ডাল আর বারো টাকা জোড়া ডিম দিয়েই কোন মতে দুমুঠো খেয়ে ক্ষুধা নিবারণ করতেছে।
কিংবা তোমাদেরই নষ্ট করা খাবার ডাস্টবিন থেকে কুড়িয়ে ক্ষুধার জ্বালা মিটাচ্ছে এক বেলা না খেয়ে থাকা কিশোরটি।
অথচ তাদের জানা নেই এই রাত বছরের শেষ রাত। নতুন বছরকে বরণ করে নিতে কত টাকা খরচ করে আজ রাতে এত কিছুর আয়োজন করে যাচ্ছো।
অফিসের ঐ নাইট গার্ড তার রোজকার ডিউটি পালন করতে হাজির, কারণ তার কাছে থার্টি ফার্স্ট নাইট বলতে কিছু নেই।
মোড়ের ঐ রিক্সাওয়ালাটা তার রিক্সা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে, এই মধ্যরাতে যদি কোন প্যাসেঞ্জার পাই তবে ভাড়ার বিনিময়ে সঠিক গন্তব্যে পৌঁছে দিবে বলে। কারণ ঐ রিক্সা ওয়ালার কাছে থার্টি ফার্স্ট নাইট বলতে বছরের কোন এক মাসের শেষের দিনের মতোই। রাত শেষে আয় করে লোনের টাকা পরিশোধের শেষ দিন।
টঙের দোকানদারটা রোজকার মতোই চা বিক্রি করতে দোকান খুলে বসে আছে, কারণ রাতের এই বিক্রি থেকে লাভের টাকা দিয়ে সংসার চলে। তার কাছে থার্টি ফার্স্ট নাইট বলতে কিছু নেই।
ক্যালেন্ডার বদলাবে, নতুন ক্যালেন্ডার ঘরে বা অফিসে টাঙাবেন বদলাবে শুধু ঐ কাগজের সস্তা পাতা গুলোই। সময় তার আপন গতিতে চলবে, নতুন বছর হিসেবে কারো জন্য থেমে থাকবে না।
কারো হিসেবের খাতায় সবটাই বখেয়া থাকবে, কারো হিসেবের খাতায় পাওনাদার বেশি। কিংবা কারো হিসেবে ব্যাপক গড়মিল। কেউবা আমার মতোই কোন হিসেবের হালখাতা না টেনে নাক ডেকে ঘুমাবে। ভোর সকালে ঘুম থেকে উঠে ডুব দিবে নিত্যদিনের কাজের মাঝে। আর একটা লম্বা নিশ্বাস ফেলে গাইবে চিরকুটের দুই লাইন গান-
"আহা জীবন, আহা জীবন
জলে বাসা পদ্ম যেমন"....

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//