ব্রেকিং:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী কমলনগরে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, এক বাড়ি লকডাউন ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি ভবানীগঞ্জে কর্মহীন পরিবহণ শ্রমিকদের মাঝে সদর এমপি’র ত্রাণ বিতরণ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো
  • শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৭

  • || ০৬ সফর ১৪৪২

১০৬

ইব্রাহিম (আ.) কর্তৃক পবিত্র কাবাঘর নির্মাণের ঘটনা

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

সায় দুর্বল হয়ে পড়ল। তিনি শিশুর প্রতি তাকিয়ে দেখেন, (পিপাসায়) শিশুর বুক ধড়ফড় করছে কিংবা বলেছেন, সে মাটিতে ছটফট করছে। শিশু পুত্রের এ করুণ অবস্থার দিকে তাকানো তার পক্ষ্যে অসহ্য হয়ে উঠল। 

তিনি সরে পড়লেন এবং তার অবস্থানের কাছাকাছি পর্বত‘সাফা’-কেই একমাত্র নিকটতম পর্বত হিসেবে পেলেন, অতঃপর তিনি এর উপর উঠে দাঁড়ালেন, তারপর ময়দানের দিকে মুখ করলেন, এদিক সেদিক দৃষ্টি দিয়ে দেখলেন, কাউকে দেখা যায় কি-না। কিন্তু না কাউকে তিনি দেখলেন না। তখন তাড়াতাড়ি সাফা পর্বত থেকে নেমে পড়লেন। যখন তিনি নীচু ময়দানে পৌঁছলেন তখন আপন কামীসের এক দিক তুলে একজন দুর্বল লোকের মতো দৌড়ে চললেন। শেষে ময়দান অতিক্রম করলেন, মারওয়া পাহাড়ের কাছে এসে গেলেন এবং তার উপর উঠে দাঁড়ালেন। অতঃপর চারদিকে নজর করলেন, কাউকে দেখতে পান কি-না। কিন্তু কাউকে দেখলেন না। (মানুষের খোঁজে) তিনি (পাহাড়দ্বয়ের মধ্যে অনুরুপভাবে সাতবার (দৌড়াদৌড়ি) করলেন।

ইবনু আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন। নবী (সা.) বলেছেন, এজন্যেই হজের সময় মানুষ এ পাহাড়দ্বয়ের মাঝে (সাতবার) সাঈ বা দৌড়াদৌড়ি করে (এবং এটা হজের একটি অংশ)।

অতঃপর যখন তিনি (শেষবার) মারওয়া পাহাড়ের উপর উঠলেন, একটি শব্দ শুনলেন। তখন নিজেকেই নিজে বললেন, একটু ধৈর্য ধরো (মনোযোগ দিয়ে শুনো)। তিনি (একাগ্রতার সঙ্গে ওই শব্দের দিকে) কান দিলেন। আবারো শব্দ শুনলেন। তখন বললেন, তোমার শব্দ তো শুনছি। যদি তোমার নিকট সাহায্য করার কোনো কিছু থাকে তবে আমায় সাহায্য করো। হঠাৎ তিনি, জমজম যেখানে অবস্থিত সেখানে একজন ফেরেশতাকে দেখতে পেলেন। সে ফেরেশতা আপন পায়ের গোড়ালি দিয়ে আঘাত করলেন। কিংবা তিনি বলেছেন, আপন ডানা দ্বারা আঘাত হানলেন। ফলে (আঘাতের স্থান থেকে) পানি উপচে উঠতে লাগল। হাজেরা এর চতুর্দিকে আপন হাতে বাঁধ দিয়ে তাকে হাউজের আকার দান করলেন এবং অঙ্গলি ভরে তার মশকটিতে পানি ভরতে লাগলেন। তখনো পানি উপচে উঠছিল।

ইবনু আব্বাস বর্ণনা করেন, নবী (সা.) বলেছেন, আল্লাহ তায়ালা ইসমাঈলের মাতাকে রহম করুন, যদি তিনি জমজমকে বাঁধা না দিয়ে ওইভাবে ছেড়ে দিতেন, কিংবা তিনি বলেছেন, যদি তিনি অঙ্গলি ভরে ভরে পানি (মশকে) না ভরতেন, তাহলে জমজম (কূপ না হয়ে) হতো একটি প্রবহমান ঝরণা।

বর্ণনাকারী বলেন, অতঃপর হাজেরা (আ.) পানি পান করলেন এবং শিশুপুত্রকেও দুধ পান করালেন। তখন ফেরেশতা তাকে বললেন, ধ্বংসের কোনো ভয় আপনি করবেন না। কেননা এখানেই মহান আল্লাহর ঘর রয়েছে। এ শিশু তার পিতার সঙ্গে মিলে একটি পুনঃনির্মাণ করবে এবং আল্লাহ তায়ালা তার পরিজনকে কখনো ক্ষতি করবেন না। ওই সময় (বাইতুল্লাহ) মহান আল্লাহর ঘরের পরিত্যক্ত জায়গাটি মাটি থেকে টিলার ন্যায় উঁচু ছিল। বন্যার পানি আসত এবং তার ডান বাম ভেঙ্গে নিয়ে যেত।

হাজেরা (আ.) এভাবেই দিন যাপন করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত (ইয়ামান দেশীয়)‘জুরহুম’ সম্প্রদায়ের একদল লোক তাদের নিকট দিয়ে অতিক্রম করে গেল। কিংবা তিনি বলেছেন,‘জুরহুম’সম্প্রদায়ের কিছু লোক ‘কাদা‘র রাস্তায় (এদিকে) আসছিল। তারা মক্কায় নীচু জমিতে অবতরণ করল এবং দেখতে পেল কতগুলো পাখী চক্রাকারে উড়ছে। তখন তারা বলল, নিশ্চয়ই এ পাখীগুলো পানির উপরই ঘুরছে। অথচ আমরা এ ময়দানে বহুকাল কাটিয়েছি; কিন্তু কোনো পাখী এখানে ছিল না। 

অতঃপর তারা একজন বা দু‘জন ব্যক্তি (সেখানে) পাঠাল। তারা গিয়েই পানি দেখতে পেল। ফিরে এসে সবাইকে পানির সংবাদ দিলো। সংবাদ শুনে সবাই সেদিকে এগিয়ে গেল। বর্ণনাকারী বলেন, ইসমাঈলের মাতা পানির কাছে বসা ছিলেন। তারা তাকে বলল, আমরা আপনার নিকটবর্তী জায়গায় বসবাস করতে চাই; আপনি আমাদেরকে অনুমতি দেবেন কি? তিনি জবাব দিলেন, হ্যাঁ! তবে এ পানির ওপর তোমাদের কোনো অধিকার থাকবে না। তারা হ্যাঁ বলে স্বীকার করল। ইবনু আব্বাস (রা.) বলেন, নবী (সা.) বলেছেন, এ ঘটনা ইসমাঈলের মাতার জন্য এক সুবর্ণ সুযোগ এনে দিলো এবং তিনিও মানুষের সাহচর্য কামনা করছিলেন।

অতঃপর আগন্তুক দলটি সেখানে বসতি স্থাপন করল এবং পরিবার পরিজনের কাছেও খবর পাঠাল। তারাও এসে এদের সঙ্গে বসবাস করতে লাগল। শেষ পর্যন্ত সেখানে তাদের কয়েকটি পরিবারের বসতি গড়ে উঠল। ইসমাঈল (আ.) ও (আস্তে আস্তে) বড় হলেন। তাদের থেকে (তাদের ভাষা) আরবি শিখলেন। যুবক হলে তিনি তাদের অধিক প্রিয়পাত্র হয়ে উঠলেন। যখন তিনি যৌবনপ্রাপ্ত হলেন, তখন তারা তাদেরই এক কন্যাকে  তার সঙ্গে বিয়ে দিলো। বিয়ের পর ইসমাঈলের মাতা হাজেরা (আ.) মৃত্যুবরণ করলেন।

ইসমাঈলের বিয়ের পর ইব্রাহিম (আ.) তার ফেলে যাওয়া স্বজনদেরকে দেখার জন্য এখানে আসলেন। কিন্তু (এসে) ইসমাঈলকে পেলেন না। পরে তার স্ত্রী নিকট তার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন। স্ত্রী বললেন, তিনি আমাদের খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে গেছেন। পুনরায় তিনি পুত্রবধূকে তাদের জীবনযাত্রা ও অবস্থা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন। পুত্রবধূ বলল, আমরা অতিশয় দুরবস্থা, টানাটানি এবং ভীষণ কষ্টে আছি। সে ইব্রাহিম (আ.) এর নিকট (তাদের দুর্দশার) অভিযোগ করল। তিনি (পুত্রবধূকে) বললেন, তোমার স্বামী (বাড়ি) আসলে তাকে আমার সালাম জানিয়ে বলবে, সে যেন তার ঘরের দরজার চৌকাঠ বদলিয়ে নেয়। চলবে...

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//