ব্রেকিং:
দেশের খাদ্য-পুষ্টির চাহিদা পূরণে উদ্ভিদের গুরুত্ব অপরিসীম পাকিস্তান সফরে টাইগারদের দল ঘোষণা এক ফুলকপিতে ১০ মারাত্মক রোগ মুক্তি! বিশ্বের সবচেয়ে বড় কেক, দৈর্ঘ্যে সাড়ে ছয় কিলোমিটার! কেরানীর হাতে শিক্ষক-শিক্ষিকা লাঞ্ছিত প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন বিজ্ঞান ভবন খাল থেকে মাটি উত্তোলন, ৫টি গাড়ি জব্দ ব্রেকআপের আগে নিজেকে অবশ্যই চারটি প্রশ্ন করুন সিপিপির স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে সাংকেতিক যন্ত্রপাতি বিতরণ ‘বিএনপি ইভিএম নিয়ে বিষোদগার করছে’ ‘এক বছরে বিমানে লাভ ২৭৩ কোটি টাকা’ রেমিটেন্সে নতুন রেকর্ড, ১৫ দিনেই ১ বিলিয়ন দূর্গম চরেও ঠাঁই হচ্ছেনা ভূমিহীনদের ইতিহাসের এ দিনে (১৮ জানুয়ারি) দুই অধ্যক্ষকে বিএনসিসি’র গার্ড অব অনার পত্রিকা বিক্রেতার সহযোগীতায় এগিয়ে এলো আমাদের লক্ষ্মীপুর সাংবাদিক দম্পতিকে মারধরের ঘটনায় আল্টিমেটাম ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ৮ সদস্যের অনাস্থা গ্রামপুলিশদের মাঝে টর্চ লাইট ও কম্বল বিতরণ ফেরি সংকটে আটকা পাঁচ শতাধিক যানবাহন

রোববার   ১৯ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৫ ১৪২৬   ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

৫০৩

এদিন লক্ষ্মীপুরে ওড়ে বিজয়ের পতাকা

প্রকাশিত: ৪ ডিসেম্বর ২০১৯  

আজ ৪ ডিসেম্বর। লক্ষ্মীপুর হানাদারমুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের দেশছাড়া করে বিজয়ের পতাকা ওড়ায় মুক্তিবাহিনী।

মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকারদের সহায়তায় লক্ষ্মীপুরের পাঁচটি উপজেলায় অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ধর্ষণে মেতে ওঠে পাক বাহিনী। হত্যা করে শত শত নিরীহ মানুষকে।

শত্রু মুক্তির পর ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে লক্ষ্মীপুর।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের তথ্য অনুযায়ী, মুক্তিযুদ্ধের সময় লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন স্থানে ১৭টি সম্মুখযুদ্ধসহ ২৯টি অভিযান চালায় মুক্তিযোদ্ধারা। এসব যুদ্ধে ৩৫ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। আজও হানাদার ও রাজাকারদের নারকীয় হত্যাযজ্ঞের নীরব সাক্ষী হয়ে আছে বাগবাড়ি গণকবর, টর্চারসেল, মাদাম ব্রিজ বধ্যভুমি, পিয়ারাপুর ব্রিজ, বাসু বাজার গণকবর, চন্দ্রগঞ্জ, রসুলগঞ্জ, আবদুল্যাপুর, রামগঞ্জের বধ্যভূমি।

মুক্তিযোদ্ধা মনসুরুল হক জানান, ১৯৭১ সালের ২ ডিসেম্বর দেড় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা লক্ষ্মীপুর সদরের দালাল বাজার, দক্ষিণ হামছাদী, শাখারী পাড়ার মিঠানীয়া খালপাড়সহ বাগবাড়ি রাজাকার ক্যাম্পে হামলা চালায়। দুইদিনের ওই যুদ্ধ শেষে লক্ষ্মীপুর হানাদারমুক্ত হয়। অস্ত্র-বিপুল গোলাবারুদসহ আটক হয় দেড় শতাধিক রাজাকার।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার তোফায়েল আহম্মদ বলেন, স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও এসব হত্যাকাণ্ডের স্মৃতি মনে করে শিউরে উঠি। সরকার র্শীষ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছে। দ্রুত বাকিদের বিচারের দাবি জানাই।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
এই বিভাগের আরো খবর
//