ব্রেকিং:
বুয়েটের ২৬ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার ৬৩ বছর ধরে দিনে দুই কেজি বালি খান এই নারী বলের রং বুঝছেন না লিটন, টাইগার শিবিরে উৎকণ্ঠা লক্ষ্মীপুরে কৃষকদের কাছ থেকে আমন ধান কেনা শুরু হয়েছে চাল,লবণ নিয়ে একটি গোষ্ঠী অপপ্রচার চালাচ্ছে স্কুলছাত্রী হত্যার বিচার ও অবৈধ টলি বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন লক্ষ্মীপুরে নির্মিত হবে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত স্মৃতি স্তম্ভ সশস্ত্র বাহিনীকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ আহ্বান নাক ডাকলে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে, রইলো সমাধান লক্ষ্মীপুরে গণপিটুনিতে ‘ডাকাত’ নিহত বিয়ে বাড়ীর গেট নিয়ে সংঘর্ষ আহত ৮ লক্ষ্মীপুরের সৈয়দ বাপ্পী চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ সংগঠক রামগঞ্জে সিএনজির ধাক্কাতে শিশুর মৃত্যু অস্ত্র-গুলিসহ ৪ ডাকাত আটক রামগঞ্জে নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মানে বাধা সশস্ত্র বাহিনী দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন স্পষ্ট করে লিখতে চিকিৎসকদের নির্দেশ শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছেছে পেঁয়াজবাহী কার্গো সরকার টেনিসকে যথাযথ গুরুত্ব দিচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনী দিবস আজ

শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

৬৮৬

কমে যাচ্ছে ঢাকা থেকে লক্ষীপুরের দূরত্ব!

প্রকাশিত: ১ নভেম্বর ২০১৯  

ঢাকা-লক্ষ্মীপুরের ১৪০ কিলোমিটার নৌপথ ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। এটি শেষ হলে ঢাকা থেকে জেলা দু’টির দূরত্ব অন্তত ২০ কিলোমিটার কমে যাবে। সাধারণত, ঢাকা থেকে চাঁদপুর-লক্ষ্মীপুরে যেতে সাড়ে তিন থেকে চার ঘণ্টা সময় লাগে। ড্রেজিং শেষ হলে এ ২টি জেলায় নৌপথে ভ্রমণে সময় সাশ্রয় হবে প্রায় দুই ঘণ্টা। এই কাজে খরচ হবে ৭৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় জানায়, ‘ঢাকা-লক্ষ্মীপুর প্রান্তে মেঘনা নদী ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নাব্যতা উন্নয়ন’ প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ নেওয়া হবে। বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী ও মেঘনা (লোয়ার) নদীর ওপর দিয়ে ঢাকা থেকে লক্ষ্মীপুর পর্যন্ত নৌপথের দৈর্ঘ্য প্রায় ১৪০ কিলোমিটার। এই নৌপথটি চালু হলে ঢাকা-লক্ষ্মীপুরের দূরত্ব ২০ কিলোমিটার কমে যাবে। পাশাপাশি, চাঁদপুরের দূরত্বও কমবে। যাত্রীরা সড়কপথের তুলনায় কম সময়ে চাঁদপুর-লক্ষ্মীপুরে পৌঁছাতে পারবেন। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ এই রুটকে প্রথম শ্রেণীর নৌপথ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

জানা যায়, বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরী নদীতে বর্তমানে নাব্যতা সংকট নেই। কেবল মেঘনা (লোয়ার) নদীতে লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর হাট সংলগ্ন এলাকার কিছু স্থানে গভীরতা কম। লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শাকচর ইউনিয়নের চর রমণীসোহন এলাকায় সৃষ্ট চরের কারণে এ জেলা থেকে সরাসরি ভোলা বা ঢাকার দিকে নৌচলাচল ব্যাহত হচ্ছে। চরের দক্ষিণ দিকের চ্যানেলে কিছুটা কম গভীরতার অঞ্চল খননের মাধ্যমে সম্পূর্ণ নৌপথটি চলাচলের জন্য উপযোগী করা সম্ভব। 

চলতি সময় থেকে ২০২৩ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। এ প্রকল্পের আওতায় ১৫টি প্রকৌশল সরঞ্জামাদি কেনাসহ ১৮ লাখ ঘনমিটারের খনন কাজ করা হবে। এসময় ১৬ লাখ ঘনমিটার মেইনটেন্সে ড্রেজিং, নেভিগেশনাল এইড স্থাপন, কম্পার্টমেন্ট ও খনন সহায়ক ডাইক নির্মাণ করা হবে।

ড্রেজিংয়ে সহায়তার জন্য তিনটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এসব প্রকল্প থেকে ৩০টি নতুন ড্রেজার সংগ্রহ করা হয়েছে। আরও ৩৫টি ড্রেজার আগামী তিন বছরে যুক্ত হবে। বেসরকারি ড্রেজারের পাশাপাশি সরকারি ড্রেজারেও নৌপথ খনন করা হবে। কমপক্ষে ৫০ শতাংশ ড্রেজিং কাজ সরকারি ড্রেজারের মাধ্যমে, বাকি কাজ বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে করা হবে। ৬০-৬৫ বছর আগে মৃত চ্যানেলটি ড্রেজিং করার পর প্রতি বছর ৪০ শতাংশ ভরাট হয়। তাই, প্রতি বছর সংরক্ষণ ড্রেজিং বাবদ ২০ কিলোমিটার রুটে ১৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে। ড্রেজিংয়ে প্রতি ঘনমিটারে ব্যয় হবে ১৯০ টাকা। প্রকল্পের আওতায় দেশি পরামর্শক বাবদ ৫৫ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে। পরামর্শকদের মধ্যে টিম লিডারের মাসিক সম্মানী নির্ধারণ করা হয়েছে চার লাখ টাকা।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
এই বিভাগের আরো খবর
//