ব্রেকিং:
দেশ-বিদেশ যেখান থেকেই হোক, গুজব ছড়ালে ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ টেস্ট: সরকারের পূর্ণ সহযোগিতা পাচ্ছে গণস্বাস্থ্য করোনা সংকট সামলাতে ডিজিটাল ম্যাপ সমৃদ্ধের উদ্যোগ শবেবরাতের মাহাত্ম্যে মানবকল্যাণে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান চীনের কাছে চিকিৎসক-ভেন্টিলেটর চেয়েছে বাংলাদেশ, সহায়তার আশ্বাস চীন থেকেই চালু হয় হারেমে একাধিক রক্ষিতা রাখার প্রথা! ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীকে কীটনাশক খাইয়ে হত্যার চেষ্টা অনলাইনে পরীক্ষা ও ভর্তি বন্ধে ইউজিসি’র আহ্বান করোনা ঠেকাতে স্বেচ্ছায় লকডাউনে তিনগ্রাম স্বাস্থসেবীদের জন্য সিএমপি`র ফ্রি বাস সার্ভিস দেশের জন্য আগামী ৩০ দিন আরো ঝুঁকিপূর্ণ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওষুধের দোকান ছাড়া সন্ধ্যার পর সব বন্ধ রাখার নির্দেশ করোনায় আর্থিক সহায়তা পাচ্ছে জার্মানরা কমলনগরে সূর্যের হাসি ক্লিনিকটি বন্ধ গত ১০ দিন করোনা সংকট: দুর্নীতির শঙ্কায় বিএনপিকে না বললেন ড. ইউনূস করোনা আতঙ্কে বন্দুক কিনছে মার্কিনিরা ৯ মিনিটের জন্য অন্ধকারে ভারত এসএসসির ফল চলে যাবে অভিভাবকদের মোবাইলে রাসূলকে (সা.) স্বপ্নে দেখার আমল খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের সৌরভ গাঙ্গুলি
  • শুক্রবার   ১০ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৭ ১৪২৬

  • || ১৬ শা'বান ১৪৪১

১৯

কুমিল্লায় মাদক উদ্ধারে পিছিয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

মাদক উদ্ধার কার্যক্রমে পিছিয়ে আছে কুমিল্লা জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। ২০১৯ সালে মাদক উদ্ধার, আসামী গ্রেফতারে পুলিশ ও বিজিবির চেয়ে পিছিয়ে আছে তারা। জনবল সংকটের কারণেই উদ্ধার কার্যক্রম বাড়াতে পারছে না বলে দাবি করেছেন কুমিল্লা কার্যালয়ের প্রধান। বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান আর লিফলেট-পোস্টার সাঁটানোর কাজেই করছেন তারা।  
কুমিল্লা জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০১৯ সালে জেলা পুলিশ উদ্ধার করেছে ১৫ কোটি ৬৪ লাখ ১১ হাজার ১ শ’ ৫৬ টাকা মূল্যে বিভিন্ন ধরনের মাদক। এসব মাদক উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে ২ হাজার ৬ শ’ ৮৪ টি। এসব মামলায় মোট আসামী দেখানো হয়েছে ৩ হাজার ৩ শ’ ৭১ জন। ওই সালে বিজিবির ১ হাজার ২শ’ ৩৬ টি মামলায় আসামী দেখানো হয়েছে ৫শ’ ১২ জনকে। ৮ কোটি ৭২ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮ টাকা মূল্যের বিভিন্ন মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে তারা। র‌্যাব উদ্ধার করেছে ২ কোটি ২৩ লাখ ২ হাজার ২শ’ মাদক। ৯২টি মামলায় আসামী ১৩০ জন। এছাড়া রেলপুলিশের ৩৪টি মামলায় আসামী ৩২ জন। মাদক উদ্ধার হয়েছে ১৫ লাখ ৫১ হাজার টাকা মূল্যের।
একই পরিসংখ্যান থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, ২০১৯ সালে মাদক সংক্রান্ত ৩শ’ ৩৮টি মামলায় মোট আসামী হয়েছে ৩ শ’ ১ জন। এই অধিদপ্তর উদ্ধার করেছে ৪২ লাখ ৬৪ হাজার ৫ শ’ টাকার মাদক দ্রব্য। তারা শুধুমাত্র রেলওয়ে পুলিশের চেয়ে এগিয়ে আছে।
জুলাই ২০১৯ হতে জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত ৮ মাসে এই কার্যালয়েল মামলার সংখ্যা ২২০টি এবং আসামী করা হয়েছে ২০৩ জনকে। আটকৃত মাদকদ্রব্যের তালিকায় আছে,  ৩ হাজার ৯শ ২৪ পিস ইয়াবা, প্রায় ১১০ কেজি গাঁজা, ১ টি গাঁজা গাছ, ফেনসিডিল ৬৫ বোতল, চোলাই মদ ১০৩ লিটার।
মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর কুমিল্লা জেলার তথ্য মতে, কুমিল্লা কার্যালয়ে ৩৩ টি পদে জনবল থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে চতুর্থ শ্রেণীর ৩ কর্মচারিসহ এখানে আছে মাত্র ১১ জন। এর মধ্যে দাপ্তরিক কাজে নিয়োজিত বেশির ভাগ। এই জনবল কুমিল্লা জেলার মত একটি গুরুত্বপূর্ন এলাকার জন্য পর্যাপ্ত নয় বলে মনে করেন জেলা কার্যালয়ের নব নিযুক্ত উপ পরিচালক মোঃ জাকির হোসেন। এছাড়া  নিরস্ত্রভাবে মাদক উদ্ধারে অভিযান পরিচালনা করা ঝুঁকিপূর্ন বলেও মনে করেন তিনি।  
মাদকদ্রব্য উদ্ধার, মাদকের স্পট গুড়িয়ে দেয়া, আসামী গ্রেফতার ও মামলার বাইরেও এই অধিদপ্তরের লোকজনকে  বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। বিভিন্ন সময় কার্যালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন এলাকায় মাদকের কুফল ও প্রভাববিস্তার রোধে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালান তারা। এছাড়া  বিভিন্ন স্কুল কলেজে শিক্ষার্থীদের মাদকদ্রব্য নিয়ে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন তারা। এসবের পাশাপাশি এত কম জনবল নিয়ে মাদক উদ্ধার ও আইনী প্রক্রিয়া চালানো দুঃসাধ্য বলে মনে করেন কুমিল্লা কার্যালযের উপ-পরিচালক মোঃ জাকির হোসেন।  

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//