ব্রেকিং:
কুমিল্লায় মাদক উদ্ধারে পিছিয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর রামগঞ্জ বেগমগঞ্জ সড়কে যাত্রী হয়রানী রোধে ওসির পদক্ষেপ লক্ষ্মীপুরে স্যোশাল মিডিয়া ব্যবহারে সচেতনতামূলক সেমিনার রামগতি থানা পুলিশ কর্তৃক ১ বছরের সাজা প্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার দায়িত্ব পেলে ভাইকেন্দ্রিক রাজনীতি মুক্ত লক্ষ্মীপুর গড়বো : পিংকু এক মাস আগে সৌদিতে গিয়ে লাশ হলেন ইয়ামিন যে কারণে গোপন বৈঠকে প্রথম আলো-ডেইলি স্টারে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত নভেম্বরের মধ্যেই লক্ষ্মীপুরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতিস্তম্ভ: ভূমিমন্ত্রী অবশেষে নিয়ন্ত্রণে আসছে করোনাভাইরাস! জমি নিয়ে বিরোধে সাংবাদিক মহিউদ্দিন মুরাদের পরিবারকে হয়রানি, সম্পদের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে তারেক-শর্মিলার দ্বন্দ্বের বলি খালেদা দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র চালাতে লন্ডনে তারেকের ৪টি উইং! দিল্লিতে সহিংসতায় নিহত বেড়ে ২৪, ঘর ছাড়ছেন আতঙ্কিত লোকজন ফেনীতে হতাশায় ফাঁস দিলেন ব্যবসায়ী! দাদা হত্যা মামলায় নাতি গ্রেফতার পাপিয়ার সহযোগীরাও আইনের আওতায় আসবে: দুদক সচিব চার ধাপে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদক পেলেন ১৭২ শিক্ষার্থী পেঁয়াজ রফতানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলো ভারত আগামী বছরই ট্রেনে যাওয়া যাবে দার্জিলিং
  • শনিবার   ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪২৬

  • || ০৫ রজব ১৪৪১

৬৩

দূর্গম চরেও ঠাঁই হচ্ছেনা ভূমিহীনদের

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২০  

লক্ষ্মীপুরে দুর্গম চরেও পরিবার পরিজন নিয়ে ঠাঁই হচ্ছেনা ভূমিহীনদের। আশ্রয়ের খোঁজে দ্বারে-দ্বারে ঘুরছেন ভিটামাটি হারা হাজারো মানুষ। ভাঙ্গা-গড়ার মধ্যেই জেগে উঠা এসব চরাঞ্চলে ভূমিহীনদের আশ্রয় দেওয়ার কথা থাকলেও পূনবার্সনের নামে ভূমি চলে যাচ্ছে প্রভাবশালীদের দখলে।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সরকারের খাস জমি বছরের পর বছর অবৈধভাবে দখল করে প্রতি একর ভূমি ১০/১৫ হাজার টাকায় (লাগদি) ভূমিহীনদের কাছ থেকে আদায় করছেন রায়পুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেনসহ অনেকেই।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার চরবংশীর কানিবগার চর এটি। এ চরে বসবাস করে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ। এদের মধ্যে ভূমিহীন খাদিজা বেগম। নদীভাঙ্গার কারনে ৪০ বছরের জীবনে বসতবাড়ী পরিবর্তন করতে হয়েছে তিনবার। হারিয়েছেন বাপ-দাদার ভিটামাটি।
সন্তানদের নিয়ে আশ্রয়ের খোঁজে দ্বারে-দ্বারে ঘুরেছেন। কিন্তু এ দীর্ঘ সংগ্রামে ভূমি অফিস থেকে পাননি এক টুকরো খাস জমি বন্দোবস্ত। তার অভিযোগ, রায়পুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেনের কাছ থেকে তিন একর জমি নিয়ে চাষাবাদ ও বসবাস করছেন। এর বিনিময়ে প্রতি একর জমির খাজনা বাবত বছরে তাকে দিতে হচ্ছে ১২/১৫ হাজার টাকা। অথচ এ সম্পত্তি মেঘনার জেগে উঠা চর। এ খাস সম্পত্তি দখল করে নেয় তিনি। প্রতি বছর খাজনা দিতে দেরী হলে উচ্ছেদের হুমকি দেয়া হয়। একই অভিযোগ করেন ভূমিহীন আবুল কালাম, লোকমান ব্যাপারী, আজগর মাঝি, কাদের, মহরম আলী সর্দ্দার, হাসান ও বাচ্ছুসহ শতাধিক মানুষ।
তাদের অভিযোগ, রায়পুর উপজেলা পরিষদের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেনের রয়েছে চরে একদল লাঠিয়াল বাহিনী। আর এ বাহিনীর নেতৃত্বে রয়েছে মফিজ খাঁন, আবুল মাল ও ফারুক ছৈয়াল। চরঘাসিয়া, চরকানিবগা ও চরকাচিয়ায় প্রায় ৫ হাজার একর খাস জমি বছরের পর বছর দখল করে নেয় আলতাফ হোসেন। বছরে প্রতি একর ভূমি ১২/১৫ হাজার টাকায় লাগদি দিয়ে লাখ লাখ টাকা আদায় করে নিচ্ছে আলতাফ হোসেন। এসব বিষয়ে প্রতিবাদ ও কথা বললে নেমে আসে নানান হয়রানী।
২০১৯ইং সনের ২৮ ডিসেম্বর এসব চর পরিদর্শনে যান জেলা প্রশাসক আঞ্জন চন্দ্র পালসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। জেলা প্রশাসক চরের বাসিন্দা ও ভূমিহীনদের সাথে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। এসময় এসব অসহায় মানুষে মুখে উঠে এসেছে আলতাফ হোসেনের বিভিন্ন জবর দখলের চিত্র।
অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘ ১০/১৫ বছর কানিবগার চর, চরঘাসিয়া ও চরকাচিয়া এলাকার প্রায় ৫হাজার একর সরকারী খাস জমি বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে দখল করে নেয় প্রভাবাশী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন ও জাকির হোসেন মোল্লা। অথচ খাস জমি নিয়মানুযায়ী বন্দোবস্ত পাওয়ার কথা নদীভাঙ্গা ভূমিহীন পরিবারগুলোর। এসব খাস জমি ভূমিহীনদের মাঝে বন্টন করার দায়িত্ব স্থানীয় প্রশাসনের। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে প্রভাবশালীরা জেগে উঠা চরাঞ্চলগুলো নিজেরা তা দখল করে নেয়।
একই অবস্থায় চরমেঘা, চররমনী মোহন, চরআবদুল্লাহ, তেলিরচর ও বয়াচরসহ ১৫টি চরাঞ্চলের প্রায় ১০ হাজার একর খাস জমি অবৈধভাবে প্রভাবশালীদের দখলে রয়েছে। আর বছরে প্রতি একর জমি এককালীন লাগদি দিয়ে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা আদায় করে নিচ্ছে তারা।
এ দিকে স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আলী আহমদ জানান, খাস জমি প্রভাবশালীদের দখলে থাকার কথা স্বীকার করে বলছেন, সরকারের এসব সম্পত্তি উচ্ছেদ করতে গেলে প্রভাবাশালীরা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে তা বন্ধ করে দেয়। তিনটি চরে প্রায় ২৭শ একর সরকারী খাস সম্পত্তি আলতাফ হোসেনসহ অন্যরা দখল করে নেয়। নিজের অসহায়ত্বের কথা বলছেন তিনি।
তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন বলেন, প্রতিপক্ষরা তাকে ফাঁসাতে এসব কথা রটাচ্ছেন। এসব সম্পত্তি নিয়ে আদালতে মামলা চলে। এতে আমার করার কিছু নেই। তবে চরাঞ্চলের এসব সম্পত্তি নিয়ে কার সাথে বিরোধ বা মামলা রয়েছে তা তিনি কৌশলে এড়িয়ে যান।
এ দিকে জেলা প্রশাসন অঞ্জন চন্দ্র পাল বলছেন, ইতিমধ্যে চরগুলো পরিদর্শন করা হয়েছে। চরাঞ্চলে সরকারের যে খাস সম্পত্তি প্রভাবশালীদের দখলে রয়েছে। তার একটি তালিকা তৈরির কাজ চলছে। তালিকা শেষে দখলকৃত ভূমি উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করা হবে। যতবড় প্রভাবশালী ব্যাক্তিই হোক, কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//