ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুরে ১২ নভেম্বরকে উপকূল দিবসের দাবি দ্বীর্ঘদিনের ভোগান্তি শেষে উন্মোচন হচ্ছে রামগঞ্জ-হাজিগঞ্জ সড়ক গ্রাহকের টাকা ফেরত দিতে পল্লী বিদ্যুৎকে দুদকের নির্দেশ লক্ষ্মীপুরে ৯০০ পিস ইয়ায়বাসহ যুবক আটক সাউথবাংলা এগ্রিকালচারাল এন্ড কমার্স ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন সাজাপ্রাপ্ত ছলিম উদ্দিন পুলিশের জালে আটক সাজাপ্রাপ্ত আসামী পুলিশের জালে আটক রায়পুরে পানিবন্দী ১০ ইউপির মানুষ পেশীর টান? প্রতিকারের সহজ উপায় কম গ্যাস খরচ করে রান্নার সেরা কৌশল! স্ত্রীদের সঙ্গে রাসূল (সা.) এর আচরণ ও বিনোদন ধর্ষকের সাজা কমাতে কোটি টাকার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান তরুণীর দুঃসময়ের নেতাদের নেতৃত্বে আনা হবে: কাদের আজ ভয়াল ১২ নভেম্বর মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে গাম্বিয়ার মামলা যেভাবে ঘটে দুই ট্রেনের সংঘর্ষ (ভিডিও) ট্রেন দুর্ঘটনায় আহতদের প্রচুর রক্তের প্রয়োজন দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন যুক্তরাজ্যে গাঁজা দিয়ে তৈরি হচ্ছে ওষুধ সেন্টমার্টিনে আটকা পর্যটকদের আনতে তিন জাহাজ

বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৮ ১৪২৬   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

১২৮৩৩

পরিবর্তন চাই নাকি উন্নয়ন?

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

পরিবর্তন চাই বলে যারা গলা ফাটাচ্ছেন তাদের জন্য কিছু কথা। বিএনপি যদি ক্ষমতায় আসে তবে তাদের কাজ কি হবে? আগামী পাঁচ বছর তারা কি করবে? চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১ম বছরঃতাদের নেত্রী যিনি কিনা দন্ডপ্রাপ্ত হওয়ার কারনে নির্বাচনে অংশগ্রহনের বৈধতা হারিয়েছেন তাকে জেল থেকে বের করবে। এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, বিএনপি নির্বাচিত হওয়ার ৭২ ঘন্টার ভিতরেই খালেদা জিয়াকে বের করে প্রধানমন্ত্রী বানানো হবে। দুর্নীতি, অর্থ পাচার ও সন্ত্রাসী হামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক রহমানকে জামিনে লন্ডন থেকে দেশে নিয়ে আসবে। তার পর মা-ছেলে মিলে দেশ ধ্বংসের নীলনকশা তৈরীতে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। আর দেশের উন্নয়ন? সেটা করার জন্য তো আরও ৪ বছর আছেই। 

২য় বছরঃস্বাধীনতা বিরোধী, দুর্নীতি, ধর্ষন, মাদক ব্যবসা, হত্যা, ছিনতাই,রাহাজানি ইত্যাদি মামলায় তাদের যত নেতাকর্মী জেলে আছে বা দন্ডপ্রাপ্ত হয়েছে তাদের সকলকে জামিনে মুক্ত করবে। আইন পরিবর্তন করে তাদের মুক্ত করতে করতে ১ বছর বা তার বেশী সময়ও লাগতে পারে। উন্নয়নের জন্য তো আরো তিন বছর আছেই।

৩য় বছরঃ গত দশ বছরে যে সকল নেতাকর্মী আদর্শ বিসর্জন দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছে তাদেরকে আবারও নিজেদের আদর্শে উজ্জ্বিবিত করে দলে ফিরিয়ে এনে দলকে ভারি করবে। বাকি দুই বছর দেশ নিয়ে চিন্তা করা যাবে।

৪র্থ বছরঃ নেতাদের জেল থেকে মুক্ত করতে, নেতাদের নিজ ডেরায় ফিরিয়ে আনতে তারা যে পরিমান অর্থ খরচ করেছে সেই অর্থগুলো পুনরায় নিজেদের পকেটে পুরতে তারা তাদের দিন রাত এক করে দেবে। দেশের কথা ভাবার সময় কোথায়?

৫ম বছরঃ এবার তারা চিন্তা করবে সামনে নির্বাচন, নির্বাচনের খরচ যোগাতে হবে। সেজন্য আরও বেশী করে লুটতরাজ, দুর্নীতি চালিয়ে যাবে আর হামলা,মামলা ও হত্যার মতো ঘটনা ঘটিয়ে বিরোধী শক্তিকে দমন করে পুনরায় কিভাবে ক্ষমতায় আসা যায় সেই চিন্তায় লিপ্ত থাকবে । দেশের উন্নয়ন নিয়ে ভাবার সময় কোথায়?

তাহলে দেশের কি হবে? উন্নয়নের কি হবে? দেশ এগিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে পিছিয়ে যাবে আরও ১০ বছর।কারন বিএনপি উন্নয়ন নয় ভোগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী।

আপনার আমার ভোটেই সরকার গঠিত হয়। কোনো দলের হয়ে চিন্তা না করে দেশের হয়ে একবার চিন্তা করে দেখুন তো, দেশের সেবা করার নামে আমরা কি দেশকে লুটেরাদের হাতে তুলে দেবো? নাকি যারা প্রকৃতপক্ষেই দেশের উন্নয়ন করতে চায় তাদেরকে আবারও সুযোগ দিবো? সিদ্ধান্ত আপনার, আমার, আমাদের নিজেদের।

আমরা দেশের উন্নয়ন চাই, দেশকে দূর্নীতিবাজদের হাতে দেখতে চাই না।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
এই বিভাগের আরো খবর
//