ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী কমলনগরে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, এক বাড়ি লকডাউন ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি ভবানীগঞ্জে কর্মহীন পরিবহণ শ্রমিকদের মাঝে সদর এমপি’র ত্রাণ বিতরণ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো লক্ষ্মীপুরে লকডাউন অবস্থায় অসুস্থ যুবকের মৃত্যু : নমুনা সংগ্রহ
  • রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

১০৮

পর্যাপ্ত সবজি, ঝাঁজ কমেনি পেঁয়াজের

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৯  

রাজধানীর বাজারগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে শীতের সবজির সরবরাহ রয়েছে। শীতের শাক-সবজি মধ্যে ফুলকপি, পাতাকপি, মুলা, শালগম, শিম, পালংশাক, মুলাশাক, সরিষা শাকের সরবরাহ বাড়ায় কিছুটা দাম কমেছে সবজির।

এরইমধ্যে অর্ধেকে নেমেছে শিমের দাম। পাকা টমেটোর দাম কেজিতে কমেছে ২০-২৫ টাকার বেশি। তবে কমেনি পেঁয়াজের দাম। এখনো পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকার ওপরে।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ানবাজার, মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কচুক্ষেত,মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের কাঁচা বাজার ঘুরে দেখা গেছে এসব চিত্র।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতকালীন শাক-সবজির সরবরাহ বাড়ায় দাম কমতে শুরু করেছে। সামনে সরবরাহ আরো বাড়বে। ফলে সবজির দাম আরো কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে কিছু সবজির দাম কমলেও এখনো ফুলকপি, বাঁধাকপি, বরবটি, শসা, গাজরের দামে স্বস্তি মিলছে না। এ সবজিগুলো এখনো চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি শিম ৫০-৬০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। আর কারওয়ানবাজারে পাইকারিতে শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা।

কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী আলিম উদ্দিন বলেন, গত সপ্তাহে যে শিমের পাল্লা (৫ কেজি) ৩০০ টাকা বিক্রি করেছি, আজ তা ১৮০-২০০ টাকা পাল্লা বিক্রি করছি। সামনে শিমের দাম আরো কমবে। 

বাজারের আরেক ব্যবসায়ী রইস উদ্দিন বলেন, সপ্তাহের ব্যবধানে পাঁকা টমেটোর দাম কমেছে। এর কারণ বাজারে এখন কাঁচা টমেটোর পাশাপাশি দেশি পাকা টমেটোও আসছে।

তিনি জানান, গত সপ্তাহে ৪০০ টাকা পাল্লা বিক্রি হওয়া টমেটো এখন ২৮০-৩০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। এ হিসাবে কেজিতে টমেটোর দাম কমেছে ২০-২৫ টাকা।

এদিকে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১০০-১২০ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা টমেটোর দাম কমেছে ৩০ টাকার ওপরে।

শেওড়াপাড়া কাঁচা বাজারের ব্যবসায়ী কবীর মিয়া বলেন, শিম, টমেটো, মুলা, শালগমের দাম কমতে শুরু করেছে। এখন দিন যত যাবে, আস্তে আস্তে সব ধরনের সবজির দাম কমবে। অনেক সবজি ৩০ টাকা কেজির মধ্যে পাওয়া যাবে।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে নতুন আসা গোল আলুর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০-১০০ টাকা। বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা কেজি, গত সপ্তাহেও সবজিটির দাম একই ছিল। ফুলকপি ও বাঁধাকপি আগের সপ্তাহের মতো ৩০-৪০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। পেঁপেও আগের মতো ৩০-৩৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে সপ্তাহের ব্যবধানে বেগুনের দাম কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহে ৮০-১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বেগুনের দাম কমে ৪০-৬০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। মুলার কেজি ৫০ টাকা থেকে কমে ২০-৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর করলা আগের মতো ৬০-৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

মোহাম্মদপুর কাঁচাবাজার এলাকার বাসিন্দা করিম উদ্দীন বলেন, এখন শীতের সবজির ভরা মৌসুম। বাজারে সব ধরনের শীতের সবজি রয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই সব ধরনের সবজির দাম কমার কথা। শিম, মুলার দাম কিছুটা কমেছে, কিন্তু যে হারে সবজির দাম কমার কথা সে হারে কমেনি। এখন ছোট ছোট এক পিস ফুলকপি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে কোনো উদ্যোগেই দাম কমছে না পেঁয়াজের। সেই আগের মতই আবারো দেশি পেঁয়াজের দাম ২৩০ থেকে ২৫০ টাকা। আর মিয়ানমারের একটু ভালো মানের পেঁয়াজ ২০০ টাকা ও চীন থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর বাজারে প্রতি কেজি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। আদা বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা।

অপরদিকে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে ৫-১০ টাকা বেড়েছে। গত সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয়েছে ১১০-১২০ টাকা কেজি দরে। এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ১১৫-১২৫ টাকা প্রতি কেজি দরে। গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০০-৫২০ টাকায়। খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৭৫০ টাকা দরে।

রুই মাছ কেজি প্রতি ৩০০ টাকা, কাতলা ২৮০-৩৫০, শিং ৪০০, চিংড়ি ৪৫০ থেকে ৬৫০, টেংরা ৫৫০-৬০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। শোল মাছ প্রতি পিস ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
অর্থনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//