ব্রেকিং:
চীন থেকেই চালু হয় হারেমে একাধিক রক্ষিতা রাখার প্রথা! ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীকে কীটনাশক খাইয়ে হত্যার চেষ্টা অনলাইনে পরীক্ষা ও ভর্তি বন্ধে ইউজিসি’র আহ্বান করোনা ঠেকাতে স্বেচ্ছায় লকডাউনে তিনগ্রাম স্বাস্থসেবীদের জন্য সিএমপি`র ফ্রি বাস সার্ভিস দেশের জন্য আগামী ৩০ দিন আরো ঝুঁকিপূর্ণ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওষুধের দোকান ছাড়া সন্ধ্যার পর সব বন্ধ রাখার নির্দেশ করোনায় আর্থিক সহায়তা পাচ্ছে জার্মানরা কমলনগরে সূর্যের হাসি ক্লিনিকটি বন্ধ গত ১০ দিন করোনা সংকট: দুর্নীতির শঙ্কায় বিএনপিকে না বললেন ড. ইউনূস করোনা আতঙ্কে বন্দুক কিনছে মার্কিনিরা ৯ মিনিটের জন্য অন্ধকারে ভারত এসএসসির ফল চলে যাবে অভিভাবকদের মোবাইলে রাসূলকে (সা.) স্বপ্নে দেখার আমল খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের সৌরভ গাঙ্গুলি ভূমিকম্পের মাধ্যমে ধ্বংস হয়েছিল ‘পবিত্র নগরী’! লকডাউন আইসোলেশন কোয়ারেন্টাইন : ইসলাম যা বলে ছু‌টি বাড়লো ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে আরও বেশি মানুষ মারা যাবে, বললেন ট্রাম্প দেশে আরো ১৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত, মোট ৮৮
  • মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৩ ১৪২৬

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪১

৫৫৩

প্রকল্প কাগজে আছে বাস্তবে নেই!

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১৬ মার্চ ২০২০  

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলায় কাজ না করেই টেস্ট রিলিফ (টিআর),গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার-কাবিখা ও কাবিটা প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। অধিকাংশ প্রকল্পের কাজ না করে সব টাকা লোপাট করা হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

উপজেলা আ’লীগের সভাপতি একেএম নুরুল আমিন মাষ্টার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস ও স্থানীয় প্রভাবশালী নামধারী সরকার দলীয় লোকজন এ লুটপাটের সাথে জড়িত বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৯-২০ইং অর্থবছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচির অধীনে টেস্ট রিলিফ (টিআর), কাবিখা ও কাবিটা কর্মসূচির প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়  ৬৮টি প্রকল্পের মাধ্যমে  ৮৯ লাখ ৮০হাজার ৫শ’১১ টাকা বরাদ্দ হয়। প্রকল্পগুলোর মধ্যে টিআর কাবিখা, কাবিটা ও বিশেষ বরাদ্দে সোলার স্থাপনের কাজও রয়েছে। এছাড়াও এসব প্রকল্পের মধ্যে ১০টি প্রকল্পে ৮০ মেট্টিক টন চালও বরাদ্দ দেওয়া হয়। যার আনুমানিক মূল্য ধরা হয়েছে ২২লাখ ৮০হাজার টাকা।
স্থানীয়রা জানান, প্রকল্প কমিটির সভাপতি সম্পাদকদের নিকট থেকে প্রভাব বিস্তার করে ডিওতে স্বাক্ষর নিয়ে টাকা ভাগ-বাটোয়ারা করে নেয়া হয়। আবার সোলারের জন্য কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানের নামে বরাদ্দ নিয়েও কাজের কাজ কিছুই করেনি, পুরো অর্থই লোপাট হয়েছে।

প্রকল্পগুলোর মধ্যে চরলরেন্স ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের খালপাড় রোড সংস্কার, মিলন  রোড সংস্কার, তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নের আলী রোড সংস্কার, মুকবুল রোডসহ প্রায় এলাকায় সংস্কারের নামে পুরো টাকাই লুটপাট করা হেেয়ছে। এ সব লুটপাটের সাথে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদ বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব:) আব্দুল মান্নানের প্রতিনিধি একেএম নুরুল আমিন মাষ্টার জড়িত বলে বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চরলরেন্স ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের খালপাড় রোড সংস্কারের জন্য দুই লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ওই প্রকল্পে কাজ না করে সব অর্থ লোপাট করা হয়েছে। অন্য দিকে চরকাদিরা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ব্যাক্তি মালিকাধীন সড়কে প্রকল্প দেখিয়ে টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এছাড়াও হাজিরহাট ইউনিয়নের হাজিবাড়ির দরজার মসজিদ হতে মিয়া পাড়া সড়ক নামে একটি প্রকল্প রয়েছে। ওই সড়কের কোন অস্তিত্ব নেই। আবার সাহেবেরহাট ইউনিয়নের কিছু সড়ক দেখানো হয়েছে যাহা মেঘনা নদী গর্ভে বিলীন। সরেজমিন ঘুরে  উপজেলার চরমার্টিন, পাটারিরহাট, চরফলকন ও চরকালকিনি ইউনিয়নের প্রায় সকল প্রকল্পেও এমন ছিত্র দেখা যায়।

চরলরেন্স ইউনিয়নের খাল পাড় রোড সংস্কার  প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, এখনো সব টাকা উত্তোলন হয়নি। কিছু কাজ করেছি। বাকিটা পরে করবো।

এদিকে কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদ প্রতিনিধি  মাস্টার একেএম নুরুল আমিন জানান, প্রকল্পের নামে দলীয় নেতা-কর্মীদের জন্য কিছু বরাদ্দ আনা হয়েছে। অফিস খরচ দিলে তেমন থাকে না। তিনি আরও বলেন,“চরলরেন্স ইউনিয়নে ৭নম্বর ওয়ার্ডের খাল পাড় রোডে আমার একটা প্রকল্প আছে আমি পরে কাজ করবো” এ ছাড়াও তিনি এ বিষয় নিয়ে নিউজ না করতে সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন।

এ বিষয়ে কমলনগর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (ভারপ্রপ্ত) মো. রিয়াদ হোসেন বলেন, আমিতো নতুন এসেছি। এর আগের ইউএনও স্যার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাজ তদারকি না করে কিভাবে বিল দিয়েছে আমি কিছুই জানিনা। তবে কোন প্রকল্পে কাজ হয়নি এটা নিশ্চিত।

কমলনগর উপজেলা নির্বাহী মোহাম্মদ কর্মকর্তা মোবারক হোসেন বলেন, এ বিষয়ে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
স্থানীয় সংসদ সদস্য ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব:) আব্দুল মান্নান বলেন, প্রকল্প তৈরীর করেছে ইউএনও ,প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও আমার প্রতিনিধি নুরুল আমিন মাস্টার। কাজ না করে টাকা উত্তোলন করলে ইউএনও ও পিআইও কি করে। তাদের কাজ কি? বলে প্রশ্ন ছুড়েন এ সংসদ সদস্য।

২০১৯-২০২০ইং  অর্থ বছরের টিআর, কাবিখা ও কাবিটা প্রকল্পের সকল বরাদ্দের তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//