ব্রেকিং:
দেশ-বিদেশ যেখান থেকেই হোক, গুজব ছড়ালে ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ টেস্ট: সরকারের পূর্ণ সহযোগিতা পাচ্ছে গণস্বাস্থ্য করোনা সংকট সামলাতে ডিজিটাল ম্যাপ সমৃদ্ধের উদ্যোগ শবেবরাতের মাহাত্ম্যে মানবকল্যাণে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান চীনের কাছে চিকিৎসক-ভেন্টিলেটর চেয়েছে বাংলাদেশ, সহায়তার আশ্বাস চীন থেকেই চালু হয় হারেমে একাধিক রক্ষিতা রাখার প্রথা! ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীকে কীটনাশক খাইয়ে হত্যার চেষ্টা অনলাইনে পরীক্ষা ও ভর্তি বন্ধে ইউজিসি’র আহ্বান করোনা ঠেকাতে স্বেচ্ছায় লকডাউনে তিনগ্রাম স্বাস্থসেবীদের জন্য সিএমপি`র ফ্রি বাস সার্ভিস দেশের জন্য আগামী ৩০ দিন আরো ঝুঁকিপূর্ণ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওষুধের দোকান ছাড়া সন্ধ্যার পর সব বন্ধ রাখার নির্দেশ করোনায় আর্থিক সহায়তা পাচ্ছে জার্মানরা কমলনগরে সূর্যের হাসি ক্লিনিকটি বন্ধ গত ১০ দিন করোনা সংকট: দুর্নীতির শঙ্কায় বিএনপিকে না বললেন ড. ইউনূস করোনা আতঙ্কে বন্দুক কিনছে মার্কিনিরা ৯ মিনিটের জন্য অন্ধকারে ভারত এসএসসির ফল চলে যাবে অভিভাবকদের মোবাইলে রাসূলকে (সা.) স্বপ্নে দেখার আমল খাবার নিয়ে অসহায় মানুষের সৌরভ গাঙ্গুলি
  • শুক্রবার   ১০ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৭ ১৪২৬

  • || ১৬ শা'বান ১৪৪১

৯৯৪

বেলাভূমি আর ইলিশের হাতছানি মতিরহাট মেঘনাতীরে

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ৯ ডিসেম্বর ২০১৯  

 

উত্তাল মেঘনার মোহনায় ইলিশের টানে অবিরত লড়াই করেন মৎস্যজীবীরা। জীবনের মায়া ত্যাগ করে রোদে জ্বলে, বৃষ্টিতে ভিজে, দুর্যোগের ভয়কে জয় করে শিকার করেন রুপালি ঝিলিক দেওয়া তাজা ইলিশ। সেখানেই নদীর গা ঘেঁষে আদুরে ভঙ্গিতে হেলেদুলে এঁকেবেঁকে দুদিকের দিগন্তে মিলিয়ে গেছে সবুজ ঘাসের কার্পেটে আচ্ছাদিত মেঘনাতীর। বিশাল বেলাভূমি নিয়ে জেগে ওঠা নদীতীরে সুনসান নীরবতা। এ নীরবতায় তীরের বেলাভূমিতে আঁছড়ে পড়ছে ছোট ছোট ঢেউ। ঢেউয়ের ছলাৎ ছলাৎ শব্দ, দিগন্তছোঁয়া খোলা আকাশ, মুক্ত বাতাস, বিস্তৃত বেলাভূমির বালুময় প্রান্তর,  বিশাল মেঘনার বুকে ঢেউয়ের তালে তালে মাছ ধরা নৌকার নাচন আর নৌকার কলকল ধ্বনি পর্যটকদের আকৃষ্ট করে। এমন চমৎকার দর্শনীয় স্থানের নাম মতিরহাট মেঘনাতীর।
লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চর কালকিনি ইউনিয়নের বিখ্যাত বাজার মতিরহাট মেঘনতীরেই দেখা মিলবে এমন নয়নাভিরাম দৃশ্য। যোগাযোগব্যবস্থা ভালো হওয়ায়, স্থানটি দর্শনার্থীদের কাছে বেশ উপভোগ্য হওয়ায় ছুটির দিন, ঈদ কিংবা বিভিন্ন উৎসবে মানুষেরও উপচেপড়া ভিড় জমে সেখানে। বিগত বছরগুলোর চেয়ে মতিরহাট মেঘনাতীরে দর্শনার্থীদের ভিড় কয়েকগুণ বেড়েছে। বাজারের দুই পাশেই মেঘনার বিশাল চর থাকায় দুই পাশেই চিকচিক করা বালুপথে পা মিলিয়ে হাঁটতে পারেন দর্শনার্থীরা।
যা দেখবেনঃ 
নদীতীরে গেলে তো আপনি নদীর বিশাল জলরাশি দেখতে পাবেনই। পাশাপাশি জেলেদের ইলিশ শিকারের দৃশ্য দেখা যাবে খুব কাছ থেকে। দেখবেন  ইলিশ ঘাট এবং সারি সারি নদীতে ভাসা ইঞ্জিনচালিত মাছ ধরার নৌকা।  নদীতীরের নারকেল-সুপারি বাগান, বিশাল ছাতার মতো ছড়ানো রেইন ট্রি আর অসংখ্য গাছের গ্রামগুলোতে চোখজুড়ানো সবুজে সেজেছে প্রকৃতি। শেষ বিকেলে নিঃসঙ্গ ঘুঘুর ডাক শেষে ক্লান্ত সূর্য যখন বিদায় নিতে ব্যস্ত, তখন অধিক ব্যস্ততায় বাড়ির পথ ধরে রাখাল বালক, গরুর পাল, দুরন্ত শালিকের ঝাঁক আর শ্বেতশুভ্র বলাকার দল। ইট-পাথরে মোড়া শহরের যান্ত্রিকতা আর জীবনের জটিল সমীকরণে মন যখন হাঁপিয়ে উঠবে, তখনই প্রকৃতির এ অপরূপ স্বর্গে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে ছুটে যেতে পারেন আপনিও। আপনার ভ্রমণকে আরো বেশি রোমাঞ্চকর করতে চাইলে ঘুরে আসুন নদীতে জেগে ওঠা চর শামছুদ্দিনে। সেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, চরের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া আঁকাবাঁকা খাল আর খড়কুটোর ঘর, চরের সবুজে মোড়ানো দৃশ্য দেখতে পাবেন খুব কাছ থেকে।
অপরূপ নৈসর্গিক সৌন্দর্যে গড়ে ওঠা এ স্থান ইতিমধ্যে নজর কেড়েছে কাছের ও দূরের দর্শনার্থীদের। ভ্রমণপিপাসু বহু দর্শনার্থী  ও ভ্রমণপিপাসু অনেক সংগঠনের পা পড়েছে মতিরহাটের এ মেঘনাতীরে। এখানকার সুন্দর সৈকত যে কারো মনের গভীরে নাড়া দেবে। বিশাল বেলাভূমি নিয়ে এখানে সৈকত জেগে আছে। যে কেউ চাইলে বেলাভূমির পথ ধরে হাঁটতে পারবে বহু দূর। ইচ্ছে করলে নদীতে গোসল করতেও কারো জন্য মানা নেই। এখানে সৈকত ও বেড়িবাঁধ দুটোই রয়েছে। আর নদীর পাড়ে নারকেল-সুপারির বিশাল বাগান তো আছেই।
কোথায় থাকবেনঃ 
মতিরহাটে এখনো থাকার মতো কোনো আবাসিক হোটেল গড়ে ওঠেনি। রাত্রিযাপনের জন্য অবশ্যই জেলা শহরকে বেছে নিতে হবে। জেলা শহরে উন্নত মানের বেশ কিছু গেস্ট হাউজ গড়ে উঠেছে। উন্নত মানের দুটি আবাসিক হোটেল রয়েছে। বাগবাড়ির ঐতিহ্য কনভেশন ও স্টার গেস্ট হাউজ এবং চকবাজারের সোনার বাংলা আবাসিক রেস্টুরেন্ট ও মুক্তিযোদ্ধা হাউজ অন্যতম। সেক্ষেত্রে খরচ আসবে দেড় থেকে দুই হাজার টাকা।
কোথায় খাবেনঃ
সকাল বা রাতের খাবারটা গেস্ট হাউজেই সেরে নিতে পারবেন। মজার ব্যাপার হচ্ছে, দিনের বেলায় যেহেতু ভ্রমণে যাবেন, তাই মতিরহাটের মেঘনাতীরে তাজা ইলিশ দিয়ে দুপুরের খাবারও খেয়ে নিতে পারবেন। আর মহিষের খাঁটি দধির স্বাদটাও নিতে ভুলবেন না। চাইলে নদীতীরের ঘাট থেকে ইলিশ আর হোটেল বা দধির দোকান থেকে দধি নিয়ে আসতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন, ইলিশ যেমন তাজা, দধিও তেমন খাঁটি।
যেভাবে যাবেন মতিরহাট মেঘনাতীর 
রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে সড়কপথে বাসে করে কিংবা সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে লঞ্চে করে চাঁদপুর হয়ে জেলার শহরের ঝুমুর স্টেশন, তারপর লক্ষ্মীপুর-রামগতি আঞ্চলিক সড়কের যেকোনো গাড়িতে তোরাবগঞ্জ নেমে সেখান থেকে মতিরহাট সড়ক দিয়ে মেঘনাপাড়ে পৌঁছান। লঞ্চে গেলে খরচ পড়বে আসা-যাওয়া মোট ৮৯০ টাকা আর সড়কপথে বাসে করে গেলে মোট আসা-যাওয়ার খরচ পড়বে ৯৭০ টাকা।
সতর্কতা
সাধারণত নদীতে ভাটা থাকলে আপনি নদীতীরের বিশাল চর দেখতে পাবেন। কিন্তু জোয়ারের সময় চর একেবারেই ডুবে থাকবে। আপনি যদিও ভাটার সময় পা রাখেন, তবে আপনাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে নদীর পানি বাড়ে কি না। যদি পানি বেড়ে যায়, তাহলে ডোবার আশঙ্কাও থাকছে। নদীতীর দিয়ে চলার সময় পা যেন পিছলে না পড়ে সেদিকেও খেয়াল রাখা দরকার। অনেক সময় নদীতে জোয়ারের ভাটা হয়। তখন তীর অনেকটা পিচ্ছিল থাকে। আর মেঘনাতীর কোনো অবস্থাতেই যেন আপনার দ্বারা অপরিষ্কার না হয়। যেমন—চিপস, চানাচুরের প্যাকেট মেঘনাতীরে ফেলে আসা যাবে না। এতে নদী ও মেঘনাতীরের পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। বিশাল নদী, খোলা আকাশ আর সবুজ প্রকৃতির সান্নিধ্যে বিষণ্ণতা আর একঘেঁয়েমি মনোভাব কাটিয়ে মনকে ভরিয়ে তুলুন প্রাণপ্রাচুর্য আর উচ্ছ্লতায়। ফেরার সময় বোনাস হিসেবে সঙ্গে নিয়ে যাবেন রুপালি ঝিলিক দেওয়া তাজা ইলিশ কিংবা মহিষের খাঁটি দই।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//