ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী কমলনগরে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, এক বাড়ি লকডাউন ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি ভবানীগঞ্জে কর্মহীন পরিবহণ শ্রমিকদের মাঝে সদর এমপি’র ত্রাণ বিতরণ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো লক্ষ্মীপুরে লকডাউন অবস্থায় অসুস্থ যুবকের মৃত্যু : নমুনা সংগ্রহ
  • বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

১৪৮

মুখোশ নিষিদ্ধের প্রতিবাদে হংকংয়ে নতুন করে গণবিক্ষোভ

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ৭ অক্টোবর ২০১৯  

বিক্ষোভে মুখোশ পরার ওপর সরকারের নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার প্রতিবাদে নতুন করে গণবিক্ষোভে নেমেছে হংকংয়ের গণতন্ত্রকামী বিক্ষোভকারীরা।  

গত চার মাস ধরে চলমান সরকারবিরোধী বিক্ষোভ দমাতে ঔপনিবেশিক যুগের জরুরি আইনের আওতায় বিক্ষোভ-সমাবেশে মুখোশ পরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে হংকং সরকার। 

এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদে নতুন করে রাজপথে নেমে এসেছে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী। পুলিশের সঙ্গে তাদের একাধিক সংঘর্ষও হয়েছে।

রোববার নতুন আইন অমান্য করে মুখোশ পরেই তারা হংকংয়ের কেন্দ্রস্থলে বিক্ষোভ করেছে। নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে তারা কয়েকটি স্থান থেকে একযোগে পদযাত্রা শুরু করে।

পুলিশ কয়েক জাগায় টিয়ার গ্যাস ছুড়লেও তা উপেক্ষা করেই বিক্ষোভ হয়েছে। বৃষ্টিও উপেক্ষা করে বিক্ষোভকারীরা বিক্ষোভ চালিয়ে গেছে। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের হঠাতে জলকামানও ব্যবহার করেছে।

বিক্ষোভকারীদের মুখ থেকে মুখোশ হটিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন মানুষ আহত হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা কয়েকটি সরকারি অফিস মেট্রো স্টেশন এবং চীনের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর করেছে।

হংকংয়ের নেতা ক্যারি লাম শুক্রবার মুখোশ নিষিদ্ধের ঘোষণা দেওয়ার পরই এর প্রতিক্রিয়ায় রাস্তায় একটি ছোটখাটো বিক্ষোভ হয়েছিল। শনিবার সে বিক্ষোভে সামিল হয় আরো বেশি মানুষ। রোববার তা আরো বড় আকার ধারণ করেছে।

রোববারের বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেওয়া নীল মুখোশধারী এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী বলেন, “মুখোশ বিরোধী ওই আইন কেবলমাত্র আমাদের ক্ষোভই বাড়িয়েছে। আরো অনেক মানুষ এর প্রতিবাদে রাস্তায় নামবে। আমরা নতুন আইনকে ভয় পাই না। আমরা লড়াই চালিয়ে যাব। আমাদের অধিকারের জন্য লড়ব। আমি মুখোশ পরেছি সরকারকে এ বার্তাই দিতে যে তাদের দমনপীড়নেকে আমি ভয় করি না।”

হংকং পুলিশের ভাষ্য, বিক্ষোভকারীরা বেআইনিভাবে সমাবেশে যোগ দিচ্ছে, প্রধান প্রধান সড়ক বন্ধ করে দিচ্ছে। ফলে বিক্ষোভকারীরা দ্রুতই ঘরে না ফিরলে তাদের ছত্রভঙ্গ করার অভিযান শিগগিরই চালানো হবে।

হংকংয়ের নেতা লামও শনিবার আর কোনো সহিংসতা না হতে দেওয়ার অঙ্গীকার করে বলেছেন, আমরা আর দাঙ্গা-বিক্ষোভকারীদেরকে আমাদের প্রিয় হংকংকে ধ্বংস করতে দিতে পারি না।

হংকংয়ের জননিরাপত্তাকে বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়া বিক্ষোভকারীদের ‘চরম সহিংসতা’র প্রেক্ষাপটেই মুখোশ বিরোধী আইন করা হয়েছে বলে জানান তিনি। নতুন আইনের আওতায় মুখ ঢেকে রাখার জন্য বিক্ষোভকারীদের একবছরের জেল হতে পারে।

হংকংয়ে বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাস থেকে বাঁচতে এবং তাদের যেন শনাক্ত করা না যায়, এজন্য প্রায়ই মুখোশ পরে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, নতুন আইনটি খুবই বিতর্কিত এবং এটি কার্যকর করাও কঠিন হবে। তাছাড়া, হংকংয়ে বিক্ষোভের বিরুদ্ধে এটিই সম্ভবত প্রথম এমন কড়া পদক্ষেপ বলে সতর্ক করেছেন সমালোচকরাও।

চীনের মূলভূখণ্ডে বন্দি প্রত্যর্পণ নিয়ে একটি প্রস্তাবিত বিল বাতিলের দাবিতে গত জুন মাসে হংকংয়ে আন্দোলন শুরু হয়েছিল।

টানা আন্দোলনের মুখে ওই বিল প্রথমে ‘মৃত’ এবং পরে বাতিল ঘোষণা করা হলেও আন্দোলন থামেনি। বরং গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনকারীরা এখন হংকংয়ের চীনপন্থি সরকারের পদত্যাগ দাবি করছে।

প্রায় চার মাস ধরে চলা আন্দোলনের সবচেয়ে সংঘাতময় দিনটি ছিল চীনে কমিউনিস্ট শাসনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কীর দিন।

পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ১৮ বছরের এক তরুণ একটি ধাতব লাঠি হাতে এক পুলিশের দিকে এগিয়ে গেলে তাকে থামাকে পুলিশ সরাসরি তার বুকে গুলি করে।

হংকং জুড়ে এদিন ২৬৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়, যাদের ১৭৮ জন পুরুষ ও ৯১ জন নারী। বিক্ষোভ শুরুর পর এর আগে একদিনে এত বিক্ষোভকারী গ্রেপ্তার হয়নি।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//