ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী কমলনগরে করোনা উপসর্গে একজনের মৃত্যু, এক বাড়ি লকডাউন ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগ, কৃষকের মুখে হাসি ভবানীগঞ্জে কর্মহীন পরিবহণ শ্রমিকদের মাঝে সদর এমপি’র ত্রাণ বিতরণ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ছাড়ালো লক্ষ্মীপুরে লকডাউন অবস্থায় অসুস্থ যুবকের মৃত্যু : নমুনা সংগ্রহ
  • শুক্রবার   ০৭ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১২৭

লক্ষ্মীপুরে ১৩ লাখ টাকার মহিষ চুরি; আটক-৩

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

লক্ষ্মীপুরে মহিষ চুরির অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে তাদের আটক করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই তাদের আটক করা হয়েছে।
আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার ২০নং চর রমণী মোহন ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়ালের রাখাল জাহাঙ্গীর হোসেন, একই ইউনিয়নের ইমন হোসেন ও তার ছেলে আমির হোসেন। এর আগে মনির হোসেন নামে এক খামারীর ১০টি মহিষ চুরির ঘটনায় গতকাল সোমবার সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগে আটককৃত তিন ব্যক্তি সহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়।
পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিন পূর্বে উপজেলার মজু চৌধুরীর হাট এলাকার মেঘনা তীরবর্তী চরের মনির হোসেনের খামার থেকে ১০টি মহিষ চুরি হয়। যার আনুমানিক মূল্য ১৩ লাখ টাকা। পরে বিভিন্ন স্থানে খুঁজেও মহিষের সন্ধান পাওয়া যায়নি। একপর্যায়ে ওই খামারী জানতে পারেন জাহাঙ্গীর, ইমন ও আমির হোসেন সহ অন্যরা মহিষগুলো চুরি করে। পরে বাহার ও আজাদ কসাইয়ের কাছে বিক্রি করেন। এনিয়ে মনির হোসেন একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
অন্য অভিযুক্তরা হলেন, চর রমনী মোহন গ্রামের জুয়েল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ এলাকার বাহার হোসেন ও মতির হাট এলাকার আজাদ হোসেন।
২৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার মনির হোসেন গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, জাহাঙ্গীর, ইমন ও আমির সহ অন্যরা তার মহিষগুলো চুরি করে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তিনজনকে আটক করে। তবে অভিযুক্তদের স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়ালের রাখাল ও  অনুসারি বলে দাবি করেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলের গরু, মহিষ সহ বিভিন্ন চুরি ঘটনা চেয়ারম্যানের অনুসারিরা করে থাকেন। এজন্য স্থানীয়রা চোরকে আটক করলেও কখনো সঠিক বিচার হয়নি। উল্টো হয়রানির শিকার হতে হয়েছে ভুক্তভোগীদের।
আটককৃত ইমনের স্ত্রী রেহানা বেগম বলেন, কিছুদিন পূর্বে তাদেরও ১৩ টি মহিষ চুরি হয়েছিলো। ঘটনাটি ঘটিয়েছেন মনির হোসেন। এ ঘটনায় যখন মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তখন মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তার স্বামী ও ছেলেকে পুলিশে দিয়েছেন।
জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ছৈয়ালের মুঠোফোনে চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে। প্রমাণ মিললে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর
//