ব্রেকিং:
প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্ব ক্যারমে পঞ্চম হেমায়েত মোল্লা বিয়ের আগে একমাত্র কন্যাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ মিথিলার চর মার্টিনে নেতৃত্বে আসতে চান বেলায়েত সকল সমুদ্র বন্দরের সংযোগ নেটওর্য়াক হবে ভোলা-লক্ষ্মীপুর সেতু লক্ষ্মীপুরে গুলিবিদ্ধ দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার লক্ষ্মীপুরে প্রতিবন্ধী দিবসে র‌্যালি ও সভা রামগঞ্জ উপজেলা শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক শামছুল ইসলাম প্রতিবন্ধীদের নিয়ে ‘নেতিবাচক মানসিকতা’ পরিহার করুন: প্রধানমন্ত্রী যুব গোল্ডকাপ ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট উদ্বোধন ১৫ ডিসেম্বর থেকে ই-পাসপোর্ট চালু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কৃষিজাত পণ্য রফতানি করতে চাই: কৃষিমন্ত্রী গণতন্ত্র মুক্তি দিবস আজ সন্ধ্যায় সৃজিত-মিথিলার বিয়ে কাঁচা মাছ, মাংস, লতাপাতা খেয়েও স্বাভাবিক আছেন অদ্ভুত এই ব্যক্তি! কাতারে বাংলাদেশি হাফেজদের কৃতিত্বপূর্ণ সাফল্য সোনা কেনার সময় যা খেয়াল রাখা খুব জরুরি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ বাংলাদেশের হজ কোটা বাড়াল সৌদি আরব সেরা কে? মুখ খুললেন অনুশকা আওয়ামী লীগের ২১তম কাউন্সিল হবে সাদামাটা

শনিবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৬   ০৯ রবিউস সানি ১৪৪১

৮৯

লক্ষ্মীপুর থেকে উপকূল দিবসের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দাবি

প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৯  

১৯৭০সালের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় “ভোলা সাইক্লোন” স্মরণে লক্ষ্মীপুরে পালিত হয়েছে উপকূল দিবস।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার, (১২নভেম্বর) সকালে লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজে র‌্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মাইন উদ্দিন পাঠান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মো. শহীদ উদ্দিন।

আলোকযাত্রা কোস্টাল ইয়ুথ নেটওয়ার্ক-লক্ষ্মীপুর টিমের আয়োজনে কর্মসূচির শুরুতে কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কলেজের কর্মকর্তা, কর্মচারীদের নিয়ে র‌্যালীটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালী শেষে কলেজে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা থেকে বক্তারা উপকূল দিবসকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবি জানান।

আলোকযাত্রা কোস্টাল ইয়ুথ নেটওয়ার্ক-লক্ষ্মীপুর টিমের টিম লিডার, তরুণ সংবাদকর্মী জুনাইদ আল হাবিবের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সামাজিক নন্দন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা রাজু আহমেদ, পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন বাবু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, কলেজ গ্রন্থাগারিক সাজ্জাদুর রহমান, কর্মকর্তা শাহেদ হোসেন, ছাত্রনেতা জিয়াদ হোসেন রাব্বীসহ কলেজের বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থী ও কর্মচারীবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, পৃথিবীর সভ্যতা সৃষ্টিলগ্নে উপকূলের ভূমিকার কথা আমরা কোনভাবেই অস্বীকার করতে পারবো না। কোথাও সাগরের, কোথাও নদ-নদী, কোথাও উপকূল অঞ্চলের ভূমিকা রয়েছে। উপকূলের মানুষগুলো অত্যন্ত সাহসী। ভাঙা-গড়ার মধ্য দিয়ে উপকূলের মানুষ জীবন যুদ্ধে টিকে থাকে। যদিও বিভিন্ন সময়ের দুর্যোগে এখানকার মানুষের জীবনকে তছনছ করে দেয়। ‘৭০-এর ভয়াল ঘূর্ণিঝড়ের কথা আমার মনে আছে। তখন আমি ৫ম শ্রেণিতে পড়ি। ঘূর্ণিঝড়ের পরে পত্রিকার পাতা খুলে দেখি, লাশ আর লাশ। গাছে গাছে লাশ ঝুলে আছে। ওদিনের ভয়াবহতার কথা কখনো ভুলতে পারবো না।”

প্রধান অতিথি আরো বলেন, “উপকূলের অঞ্চলের সুরক্ষায় উপকূল দিবসের দাবিটা যৌক্তিক। তাই দিবসটির রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবি জানাই। তাহলে অন্তত একটি দিন সবাই বিশেষভাবে উপকূলের মানুষের কথা বলবে।”

বিশেষ অতিথি বলেন, আমি নিজেই এ ১৯৭০সালের ঘূর্ণিঝড়ের প্রত্যক্ষদর্শী। সে সময়ে ভুলুয়া নদীরপাড়ে ঘূর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ততার চিত্র দেখতে গিয়েছি। সদরের ভবানীগঞ্জ পর্যন্ত গিয়ে দেখি দু’একটা কলা গাছ ছাড়া আর তেমন কিছুই চোখে পড়েনি। মানুষের ধান সব ভেসে ছিলো বন্যায়। বিশেষ করে কমলনগরের চর পাগলা এলাকা অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিলো।

এদিকে, উপকূলবাসীর অগ্রগতি ও সুরক্ষার তাগিদে ১২ নভেম্বরকে উপকূল দিবস করার দাবিতে লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

দুপুরে কমলনগর উপজেলার হাজিরহাটে কমলনগর প্রেস ক্লাবের আয়োজনে এ কর্মসুচীর আয়োজন করা হয়।

প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাজ্জাদুর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ওমর ফারুক সাগর, ইসলামী ব্যাংক হাজিরহাট শাখার ব্যাবস্থাপক মো. সানা উল্লাহ, হাজিরহাট ইউপি চেয়ারম্যান মো. নিজাম উদ্দিন, চাইল্ড কেয়ার স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ নুরুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ফজলুল হক সবুজ, যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক ইয়াছিন আরাফাত রাজু, কমলনগর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. ওয়াজি উল্যাহ জুয়েল, সাংবাদিক সানা উল্লাহ সানু, আমজাদ হোসেন আমু ও ছাত্রলীগ নেতা রাকিব হোসেন লোটাসসহ প্রমুখ।

এসময় বক্তারা ১২ নভেম্বর নিহতের স্মরণে এ দিনকে সরকারিভাবে উপকূল দিবস ঘোষণার দাবি জানান।

এরআগে উপজেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা রেবেকা মহসিনসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষের অংশগ্রহনে উপকূল দিবস দাবীতে হাজিরহাট বাজারে একটি র‌্যালি প্রদক্ষিণ করে।

অপরদিকে, রামগতি আছিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও রামগতির শারদাঞ্জলি ফোরাম যৌথভাবে এ দিবসের দাবিতে র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। সভায় বক্তব্য রাখেন আছিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক, রামগতি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ কামান শীষ মজুমদার, প্রভাষক রনজিৎ দাস, লিংকনসাহা ও সাংবাদিক মিসুসাহা প্রমুখ।

প্রসঙ্গত; ১৯৭০ সালে ১২ নভেম্বর লক্ষ্মীপুরসহ উপকূলের ১৬ জেলায় প্রলয়ঙ্করী ঘুর্ণিঝড়ে সরকারি ভাবে ৫ লাখ, তবে বেসরকারি হিসেবে ১০ লাখ মানুষ মারা যায়। লক্ষ্মীপুরে প্রাণহানী ঘটে ৫০ হাজার মানুষের। ২০১৭ সালের ১৮মার্চ জাতিসংঘের বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা এ দিনকে বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে প্রাণহানির ঘটনা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

এ ভয়াল ঘূর্ণিঝড় স্মরণে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের ৬০টি স্থানে বেসরকারিভাবে দিবসটি পালিত হয়েছে। পাশাপাশি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দিবসটির রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিবসটি পালনের উদ্যোগ নিয়েছে উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটি। আর এতে সহযোগিতা করছে উপকূল বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন, কোস্টাল জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক, চেইঞ্জ ইনিশিয়েটিভ, মাসিক পূর্বাপর, আলোকযাত্রা এবং নির্বাহ।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
এই বিভাগের আরো খবর
//