ব্রেকিং:
চাল,লবণ নিয়ে একটি গোষ্ঠী অপপ্রচার চালাচ্ছে স্কুলছাত্রী হত্যার বিচার ও অবৈধ টলি বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন লক্ষ্মীপুরে নির্মিত হবে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত স্মৃতি স্তম্ভ সশস্ত্র বাহিনীকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ আহ্বান নাক ডাকলে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে, রইলো সমাধান লক্ষ্মীপুরে গণপিটুনিতে ‘ডাকাত’ নিহত বিয়ে বাড়ীর গেট নিয়ে সংঘর্ষ আহত ৮ লক্ষ্মীপুরের সৈয়দ বাপ্পী চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ সংগঠক রামগঞ্জে সিএনজির ধাক্কাতে শিশুর মৃত্যু অস্ত্র-গুলিসহ ৪ ডাকাত আটক রামগঞ্জে নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মানে বাধা সশস্ত্র বাহিনী দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন স্পষ্ট করে লিখতে চিকিৎসকদের নির্দেশ শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছেছে পেঁয়াজবাহী কার্গো সরকার টেনিসকে যথাযথ গুরুত্ব দিচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনী দিবস আজ রামগঞ্জে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান রামগঞ্জের জাহিদ ভূঁইয়া কমলনগরে পিইসি পরীক্ষা দিচ্ছেন অষ্টম-নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা! অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি : লক্ষ্মীপুরে দুই ব্যবসায়িকে জরিমানা

শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৭ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

২৩৫

সর্বনিম্ন ৬ ডিগ্রি তাপমাত্রা, ভোগান্তিতে ছিন্নমূল মানুষ

প্রকাশিত: ২৮ ডিসেম্বর ২০১৮  

দেশের সর্বনিম্ন ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বিভাগীয় শহর রাজশাহীতে। শুক্রবার (২৮ ডিসেম্বর) এ তাপমাত্রা রেকর্ডের আগে বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) তা ছিল ৬ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে একদিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা কমেছে দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিস বলছে, দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সাধারণত ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে বলা হয় মৃদু শৈতপ্রবাহ। তাপমাত্রা ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে তাকে বলা হয় মাঝারি শৈতপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেলে তাকে তীব্র শৈতপ্রবাহ বলা হয়। সেই হিসেবে রাজশাহীসহ উত্তরাঞ্চলের ওপর দিয়ে মাঝারি শৈতপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

আবহাওয়ার এই পরিসংখ্যান বলছে, যতই দিন যাচ্ছে তাপমাত্রার পারদ কেবলই নিচের দিকে নামছে। মধ্যপৌষে যেন হামলে পড়েছে শীত। ভোরে ঘন কুয়াশা আর দিনভর ঠাণ্ডা বাতাসে কাবু হয়ে পড়েছেন ছিন্নমূল মানুষগুলো। রাতে তা আরও অসহনীয় হয়ে উঠছে। গাছপালা বেশি থাকায় শহর-নগরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে শীতের কাঁপুনি বেশি। গ্রামাঞ্চলের অনেক মানুষের জন্যই তা বয়ে এনেছে বাড়তি কষ্ট ও দুর্ভোগ।

হিমেল বাতাস আর তীব্র শীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে উত্তর জনপদের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষগুলো পড়েছেন বিপাকে।

এদিকে, আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাস বলছে আরও দু’তিনদিন রাজশাহীসহ সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমবে। ফলে নতুন করে উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের আরও কিছু এলাকা শৈতপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে।

শুক্রবার সারাদেশের মধ্যে রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪ দশমিক ৪, চট্টগ্রামে ১৩ দশমিক ৭, সিলেটে ১৩ দশমিক ৫, খুলনায় ৯ দশমিক ৮, বরিশালে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রংপুরে ৮ দশমিক ৭, ময়মনসিংহে ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
গত ২৫ ডিসেম্বর থেকে ১০ ডিগ্রির নিচে তাপমাত্রা অব্যাহত রয়েছে রাজশাহীতে। এই জেলায় শৈতপ্রবাহ আরো কয়েকদিন থাকবে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

জানতে চাইলে রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান বলেন, তাপমাত্রা আরও কমতে পারে। এতে রোববার (৩০ ডিসেম্বর) ভোটের দিন তীব্র শীত পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে দু’তিনদিন পর তাপমাত্রা কমার প্রবণতা থামতে পারে। তারপর আবার তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। শীতের প্রকোপ তখন কিছুটা কমে আসবে। তবে এর আগে সকাল-সন্ধ্যা ও রাতে ঘন কুয়াশা থাকবে।

তার মতে গ্রীষ্মকালে যেমন দখিনা বাতাস স্বাভাবিক, তেমনি শীতে উত্তরের বাতাস। এই বাতাস না বইলেও গ্রীষ্মে তাপপ্রবাহ এবং শীতে শৈতপ্রবাহ আসতে পারে। তবে তাপমাত্রা কমলেই সবক্ষেত্রে শীতের অনুভূতি সমানভাবে তীব্র নাও হতে পারে। যেমন কোনো একটি দিনের সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রার মধ্যে ব্যবধান যত বেশি হবে, শীতের অনুভূতি তত কম হবে। দিনের বেলায় সূর্যের আলো থাকা না-থাকাও শীতের অনুভূতিতে পার্থক্য এনে দেয়। একই তাপমাত্রায় শহর ও গ্রামে শীতের অনুভূতিতে পার্থক্য হয়। এজন্য শহরে কম এবং গ্রামাঞ্চলে বেশি শীত অনুভূত হয়।

এদিকে হঠাৎ করেই শীতের প্রকোপ বাড়ায় রাজশাহীতে কোল্ড ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট ও হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। শীত যতই বাড়ছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা ততই বাড়ছে। শীতের অসুখে শিশু ও বয়স্করাই আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
এই বিভাগের আরো খবর
//