ব্রেকিং:
চার বছর পর সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী
  • রোববার ২৩ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৮ ১৪৩১

  • || ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

স্বর্ণালি আমের মুকুল ছড়াচ্ছে সুবাস

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২০  

বসন্তের আগুনরাঙা গাঁদা ফুলের সঙ্গে সুবাস ছড়াচ্ছে আমের মুকুল। এর মিষ্টি ঘ্রাণে মৌ মৌ করতে শুরু করেছে চারিদিক। মুকুলের সেই সুমিষ্ট সুবাস আন্দোলিত করে তুলছে মানুষের মন। বাংলা পঞ্জিকায় সদ্যই অভিষিক্ত ঋতুরাজ বসন্ত। আগুনঝরা ফাগুনের আবাহনে ফুটেছে শিমুল-পলাশ। গ্রামের মেঠোপথে কখনো কখনো দূর সীমানা থেকে কানে ভেসে আসছে কোকিলের কুহু কুহু কলতান। বসন্তের ফাগুন আর আমের মুকুল যেন একই সুতোয় গাঁথা। 

বছরের নির্দিষ্ট এই সময়জুড়ে কমবেশি সব শ্রেণির মানুষেরও দৃষ্টি থাকে সবুজ পাতায় ঢাকা আম গাছের শাখা-প্রশাখায় মুকুলের দিকে। সদ্য মুকুল ফোটার এমন দৃশ্য এখন লক্ষ্মীপুর শহর থেকে গ্রামীণ জনপদেও। লক্ষ্মীপুরে প্রচুর আম বাগান না থাকলেও এখানকার প্রতিটি বাড়িতে রয়েছে কম-বেশি আম গাছ। তবে সম্প্রতি গড়ে উঠেছে বেশ কিছু ছোট-বড় আমের বাগান।  

বিশেষত মাঘের শেষে লক্ষ্মীপুরে আম গাছে মুকুল আসে। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। লক্ষ্মীপুরে প্রায় প্রতিটি গাছে মুকুল এসেছে। ফাগুনের স্নিগ্ধ বাতাসে সুবাস ছড়াচ্ছে স্বর্ণালি সেই আমের মুকুল।

স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শে বছর জুড়ে চাষিরা বাগানের নিয়মিত পরিচর্যা করছেন। এ কারণেই মূলত লক্ষ্মীপুরে সব বাগানেই আমের আশানুরূপ ফলন বাড়ছে। এছাড়া এবার পৌষের শেষেই আগাম মুকুল এসেছে লক্ষ্মীপুরে অনেক আম বাগানে। তাই এরইমধ্যে স্বর্ণালি মুকুলে ছেয়ে গেছে লক্ষ্মীপুরের প্রতিটি আম বাগান। মুকুলের আধিপত্যে থাকা বাগানগুলো দেখে আমচাষিদের মনে আশার প্রদীপ জ্বলে উঠেছে। প্রতিদিনই চলছে পরিচর্যা। আম গাছের গোড়ায় মাটি দিয়ে উঁচু করে দেয়া হচ্ছে সেচ।

জেলা কৃষি সম্পসারণ অধিদফতরের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আবুল হোসেন জানান, বড় ধরনের কোনে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার আমের ভাল ফলন হবে। বাগান মালিকেরা নিয়মিত বাগানের পরিচর্যা করছেন। গাছে মুকুল আসার আগ থেকেই তারা গাছের পরিচর্যা করছেন। মুকুল ধরে রাখতে গাছে গাছে বালাইনাশক স্প্রে করতে বলা হয়েছে।

সরেজমিনে জেলা শহরসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন জায়গায় সারি সারি আম গাছ। অনেকেই নিজ বাড়ির আঙিনায় লাগিয়েছেন আম গাছ। আবার কেউ কেউ শখের বসে করেছেন আম বাগান।

মজুচৌধুরীর হাট এলাকার আম বাগানের মালিক এমদাত উল্যা বলেন, আবহাওয়া দেখে মনে হচ্ছে আমের অনুকূল পরিবেশই রয়েছে। আমরা এখন মুকুলের পরিচর্যা করছি। কুয়াশার কারণে অনেক মুকুল ঝড়ে পড়ে যায়। এ বছর কুয়াশা তেমনটা হয়নি। তাই ভালো ফলনের আশা করছি। রোগবালাই থেকে মুকুল রক্ষা করতে কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছি। ছত্রাকজনিত রোগে আমের মুকুল, ফুল ও গুটি আক্রান্ত হতে পারে। এ রোগ গাছের ক্ষতি করে। কৃষি বিভাগ আমাদেরকে নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, একবার ফলন হলেও বছরের প্রায় পুরোটা সময় জুড়েই আম বাগানের পরিচর্যা চলে। সঠিক পরিচর্যা করায় সব গাছে মুকুল এসেছে। সাধারণত মাঘের শেষে ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে আমের মুকুল আসে। তবে এবার প্রায় এক মাস আগে মধ্য জানুয়ারিতেই কিছু কিছু গাছে আমের আগাম মুকুল এসেছে। এখন ঘন কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া না হলেই ভালো। 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. বেলাল হোসেন খান বলেন, আমের উৎপাদন সফল করতে এর সুষ্ঠু পরিচর্যা শুরু করে দিয়েছেন গাছ মালিকরা। মুকুলে পোকা-মাকড়ের উপদ্রব বা অন্য কোনো সমস্যা দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। শীত যেহেতু এখনো আছে। তাই এখন কোনো কারণে কুয়াশা না পড়লেই ভালো। ভালো ফলন পেতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। 

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
//