ব্রেকিং:
চার বছর পর সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী
  • মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৮ ১৪৩১

  • || ১৫ মুহররম ১৪৪৬

সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের দায়িত্ব সরকারের

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১১ নভেম্বর ২০১৮  

অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন,নির্বাচন অপরিহার্য। গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু সে নির্বাচন অবশ্যই সুষ্ঠু হতে হবে। সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রধান উপাদান হলো দুটি। এক. আগ্রহী সব রাজনৈতিক দলের নির্বিঘ্ন অংশগ্রহণ। দুই. নির্বাচনে ভোটারদের নির্বিঘ্নে ভোটদান। এই দুটি বিষয় নিশ্চিত করার দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।

সরকারকে এই দায়িত্ব নিতে হবে দুটি কারণে। এক. সরকার রাষ্ট্রক্ষমতায় আছে। দুই. সরকারি দলও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। তাই নির্বাচনে যাতে যথার্থ প্রতিদ্বন্দ্বী থাকে এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়, সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে সরকারকেই। এটা নিশ্চিত করা না হলে বা নিশ্চিত করা না গেলে যে নির্বাচন হবে, তাতে যাঁরাই বিজয়ী হবেন, সে বিজয় কোনো গৌরব বয়ে আনবে না। তা ছাড়া, তেমন একটি নির্বাচনে বিজয়ী বা নির্বাচিতদের প্রতি জনগণের আস্থায়ও ঘাটতি পড়বে।

গণতান্ত্রিক শাসনপদ্ধতির অন্যতম প্রধান বিষয় হচ্ছে জবাবদিহি। নির্বাচন সুষ্ঠু না হলে সেই নির্বাচনে যাঁরা নির্বাচিত হন, জনগণের প্রতি তাঁদের জবাবদিহির ব্যাপার থাকে না। আর জবাবদিহি না থাকলে সংসদীয় পদ্ধতির শাসনব্যবস্থা কার্যত অচল হয়ে পড়ে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সরকার, সরকারি দল ও সব রাজনীতিকের উচিত হবে এই বিষয়গুলো মনে রাখা এবং একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া। সেসব পদক্ষেপ নেওয়া না হলে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আর সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা এগিয়ে নেওয়াও অসম্ভব হয়ে পড়বে। 

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
//