ব্রেকিং:
চার বছর পর সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী মাওলানা ত্বহার হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইভার অন; বন্ধ মোবাইল ফোন কে এই মাওলানা ত্বহার ২য় স্ত্রী সাবিকুন নাহার? আওয়ামীলীগের ধর্মীয় উন্নয়নকে ব্যাহত করতে ত্বহা ষড়যন্ত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে প্রবাসীর মৃত্যু! লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে দিলেন নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ্মীপুরে করোনা রোগী ৩৭ জন : নতুন করে শিশুসহ আক্রান্ত ৩ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত করোনার তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২ লাখ ১১ হাজার মানুষের মারা যাওয়া তরুণের করোনা নেগেটিভ, তিন ভাই বোনের পজেটিভ লক্ষ্মীপুরে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল এডভোকেট নয়ন লক্ষ্মীপুরে ত্রাণের সাথে ঘরও পেল লুজি মানসম্মত কোন ধাপ অতিক্রম করেনি গণস্বাস্থ্যের কিট পরিস্থিতি ঠিক না হলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব স্কুল-কলেজ বন্ধ বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যদের সাথে পুলিশ সুপারের ভিডিও কনফারেন্স লক্ষ্মীপুরে আরো ৩ জনের করোনা পজেটিভ আপনিকি করোনা পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কিট ব্যবহারের বিপক্ষে? লক্ষ্মীপুরে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ লক্ষ্মীপুরে ২০০০ পরিবার পেল উপহার সামগ্রী
  • রোববার   ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৩ ১৪২৯

  • || ১৩ রজব ১৪৪৪

চাকরি হারানো অ্যাথলেটের পরিবারের দায়িত্ব নিলেন তামিম

আলোকিত লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০২০  

বাংলাদেশে ক্রিকেট ও ফুটবলের বাইরে অন্যান্য খেলোয়াড়দের কদর তেমন নেই বললেই চলে। গত অক্টোবরে জুনিয়র অ্যাথলেটিকসে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে সোনা জেতা সামিউল ইসলামও খুব পরিচিত মুখ নন। কিছুদিন আগে বিজেএমসির চাকরি হারিয়ে বেশ অভাবে দিন কাটাচ্ছিলেন এই দৌড়বিদ। খবরটি জানতে পেরে আর বসে থাকেননি বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল। নিজেই ফোন করে ডেকে নেন সামিউলকে। আগামী তিন মাসের জন্য সামিউলের পরিবারের সব দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। 

মূলত খেলোয়াড় কোটায় অস্থায়ী একটি পদে চাকরি করতেন সামিউল ইসলাম। বেতন এমনিতেও আহামরি কিছু ছিল না। চলতি বছর জানুয়ারির শেষ দিকে অস্থায়ী পদে চাকরি করা মোট ২৬৫ জন খেলোয়াড় ও কোচকে ছাঁটাই করে দেয় বিজেএমসি। এরপর থেকেই কঠিন সময় পার করছিলেন এই দৌড়বিদ ও তার পরিবার। একটি ইংরেজি দৈনিক থেকে এ খবর জানার পরই দেশের সম্ভাবনাময় এই অ্যাথলেটের জন্য এগিয়ে আসেন তামিম। 

দৌড়ের পাশাপাশি ফুটবলও মোটামুটি ভালোই খেলেন সামিউল। তবে গত বছরের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত জুনিয়র অ্যাথলেটিকসে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে মাত্র ১১.৪১ সেকেন্ড সময় নিয়ে সোনা জয়ের পরই পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন তিনি। এই সুবাদে বিজেএমসিতে চাকরিও পেয়ে যান সামিউল। সেখানকার চাকরি হারানোর পর ফুটবলে খ্যাপ খেলে আয় করতেন তিনি। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে সেই রাস্তাও বন্ধ হয়ে গেলে বিপাকে পড়েন এই দৌড়বিদ। লকডাউনের ফলে বাবার মুদি দোকানও বন্ধ হওয়ায় অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটছিল তাদের। 

এ অবস্থায় টাইগার ওপেনারের মহানুভবতায় আপ্লুত হয়েছেন সামিউল। তিনি বলেন, 'তামিম ভাই আমাকে ফোন দিয়েছিলেন। প্রথমে আমার বিশ্বাসই হচ্ছিল না। তিনি আমার ও পরিবারের খোঁজ-খবর নিয়ে পরিবারের মাসিক খরচের কথা জিজ্ঞেস করলেন। এরপর বিকাশে সেই অনুপাতে তিন মাসের খরচও পাঠিয়ে দিয়েছেন। এটা আমার পরিবারের জন্য অনেক বড় পাওয়া। তার প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।'

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তামিম ইকবাল নিজেও। প্রয়োজন হলে ভবিষ্যতেও সামিউলের পরিবারকে সহায়তা করার কথা জানিয়েছেন তিনি।

আলোকিত লক্ষ্মীপুর
আলোকিত লক্ষ্মীপুর
//